এই ৬টি ভারতীয় রোম্যান্টিক থ্রিলার শিরদাঁড়ায় শিহরণ জাগাবে

মানুষের হাতে সময় কমে এসেছে। বিনোদনের জন্যও বাঁধা ধরা সময়। তিন ঘণ্টার ছবি দেখা তো বিলাসিতা। লম্বা লম্বা এপিসোডের ধারাবাহিকের উপর আর আকর্ষণ নেই। তাছাড়া সেই শাশুড়ি-বউমার থোড়-বড়ি-খাঁড়া গল্প আজকের প্রজন্ম পাতে নেয় না। এদিকে প্রযুক্তির উন্নতি হযেছে। তাই ওয়েব সিরিজেরই এখন রমরমা। আর ওয়েব সিরিজের মধ্যে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য এবং জনপ্রিয় হয় ক্রাইম থ্রিলার। আর তাতে যদি একটু রোম্যান্স মেশে তাহলে তো কেয়া বাত।

আমাদের দেশে থ্রিলার সিরিজের কমতি নেই। তবে রোম্যান্টিক থ্রিলারগুলিও দারুণ হিট। এর জনপ্রিয়তা এতটাই বেশি যে বিদেশের বাজারেও এর চাহিদা তৈরি হয়েছে। ক্রাইম থ্রিলারের তালিকায় সেক্রেড গেমস্, অসুর, দিল্লি ক্রাইম কিংবা ক্রিমিনাল জাস্টিস বা স্পেশাল ওপস্ গায়ের রোম খাঁড়া করে দিলেও তাতে রোম্যান্স নেই। বরং রোম্যান্সের তড়কা আর ক্রাইমের মশলা দেওয়া সিরিজগুলির স্বাদ খানিকটা আলাদা। গল্পের টানটান উত্তেজনা শিরদাঁড়ায় শিহরণ জাগাবে।

Twisted

রোম্যান্টিক থ্রিলারের নাম করলে সবার প্রথমেই মনে আসে পরিচালক বিক্রম ভাটের য়েব সিরিজ টুইস্টেড। বড় পর্দায় একাধিক রোম্যান্টিক থ্রিলার এবং রোম্যান্টিক হরর ছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন বিক্রম। কিন্তু ওয়েব সিরিজ টউইস্টেডের মান তাঁর সিনেমার থেকে অনেক গুণ বেশি ভালো। এটি মূলত ইরোটিক থ্রিলার। একাধিক সাহসী দৃশ্য, প্রেম, যৌনতা, বিশ্বাসঘাতকতা দিয়ে তৈরি হয়েছে এই সিরিজটি। সিরিজের পরতে পরতে রহস্য। হলিউড থ্রিলার বেসিক ইনস্টিঙ্কের সঙ্গে এর গল্পের মিল রয়েছে যথেষ্ট। তবুও এর ভারতীয় মোড়কটি বেশ আকর্ষণীয়। মুখ্য চরিত্রে নিয়া শর্মা এই সিরিজের প্রধান আকর্ষণ। এক তরুণীর অস্বাভাবিক মৃত্যুকে ঘিরে শুরু হয়েছে সিরিজ। খুনি হিসেবে তার স্বামী এবং এক সুপার মডেল থাকে পুলিশের সন্দেহের তালিকায়। একের পর এক খুনের ঘটনা, সাক্ষী লোপাট, নতুন অপরাধের ঘনঘটায় সিরিজে তৈরি হয় টানটান উত্তেজনা। উত্তেজনা এতটাই প্রবল যে, একবার দেখা শুরু করলে দর্শক মাঝপথে উঠতে পারবেন না। টুইস্টেড-এর দুটি সিরিজ রয়েছে।

A.I.S.H.A

টান টান উত্তেজনা পূর্ণ ওয়েব সিরিজ A.I.S.H.A. ভার্চুয়াল বান্ধবী ধীরে ধীরে রক্তমাংসের মানবীতে পরিণত হচ্ছে। তা নিয়েই তৈরি হয়েছে এই রহস্য রোমাঞ্চ সিরিজ। এক জিনিয়াস অ্যাপ ডেভেলপারের জীবনে রয়েছে এক নারী। তবে সে মানবী নয়। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির দ্বারা সৃষ্ট এক ভার্চুয়াল নারী। এই রহস্যময়ীকে নিয়েই গল্প এগিয়েছে। আদৌ কি এর কোনও উপস্থিতি আছে নাকি পুরোটাই কল্পনা? কিংবা ভার্চুয়াল দুনিয়া থেকে কি ই নারী রক্তমাংসের দুনিয়ায় আসতে চায়? রহস্যের জট ছাড়াতে ছাড়াতে চোখের পাতা আটকে যাবে।

Inside Edge

ক্রিকেট, রাজনীতি, অন্ধকার জগৎ, জোচ্চুরি আর যৌনতা নিয়ে টান টান উত্তেজনা সৃষ্টি করে ইনসাইড এজ ওয়েব সিরিজ। ক্রিকেটের ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগকে কেন্দ্র করে গল্প এগিয়েছে। সিরিজ দেখতে দেখতে মাঝে মাঝেই বাস্তবের কিছু ঘটনার সঙ্গে মিল খুঁজে পান দর্শক। ক্রিকেটকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা বেটিং চক্র, ক্ষমতার লড়াই, যৌন লালসা, টাকার খেলার ছড়াছড়ি এই সিরিজে। মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন রিচা চাড্ডা, বিবেক ওবেরয়, অঙ্গদ বেদি, সিদ্ধান্ত চতুর্বেদি, তনুজ বিরওয়ানি প্রমুখ। ইনসাইজ এজের দুটি সিরিজই সুপারহিট।

অপহরণ (Apaharan)

অরুণোদয় সিং এবং মাহি গিল অভিনীত অপহরণ ALT Balaji গ্রুপের অন্যতম সেরা সিরিজ। ক্ষমতাবান ব্যক্তির মেয়েকে অপহরণ করে অর্থ আদায় নিয়ে তৈরি হয়েছে গল্প। খুন, যৌনতা, রহস্য গোটা সিরিজ জুড়েই রয়েছে। উত্তর ভারতের অপরাধ প্রবণতার চিত্রটি সিরিজে বেশ স্পষ্ট।

আলিশা (Alisha)

এক মহিলা গোয়েন্দার গল্প আলিশা। মুম্বইবাসী এই মহিলার জীবনে আসে রহস্যময় কেস। গোটা সিরিজ অপরাধ, রহস্য, স্টাইল এবং গ্ল্যামারে পরিপূর্ণ। হলিউডের চার্লিজ অ্যাঞ্জেল সঙ্গে এই সিরিজের অসাধারণ মিল। যদিও ছুটির দিনে জানা গল্পও অন্যভাবে দেখতে ভালোই লাগে।

মির্জাপুর (Mirzapur)

খুন, অপরাধ, যৌনতা, প্রেম, হিংসা, অত্যাচার, মাদক, আইনলঙ্ঘন, রাজনীতি সবকিছুরই দারুণ মিশ্রণ মির্জাপুর। উত্তরপ্রদেশের অপরাধ জগৎকে একেবারে স্পষ্ট করে পর্দায় তুলে ধরেছে এই ওয়েব সিরিজ। পরিচালনা, গল্প, চিত্রনাট্য, সংলাপ এককথায় নিখুঁত। ভারতীয় ওয়েব সিরিজের একটি মাইলস্টোন এটি। মুখ্য ভূমিকায় আছেন, পঙ্কজ ত্রিপাঠী, আলি ফজল, শ্বেতা ত্রিপাঠী, রসিকা দুগ্গল, দিব্যেন্দু শর্মা, বিক্রান্ত মাসে প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *