কেন্দ্রকে ডোজ প্রতি ১৫০ টাকায় ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব নয়, জানাল ভারত বায়োটেক

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অন্যতম অস্ত্র ভ্যাকসিনের দাম নিয়ে শাসক বিরোধী তরজার মাঝে চরম আশঙ্কার কথা শোনালো কোভাক্সিন প্রস্তুতকারী সংস্থা ভারত বায়োটেক (Bharat Biotech)। সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকারকে দীর্ঘ সময় ধরে ডোজ প্রতি ১৫০ টাকা মূল্যে ভ্যাকসিন (Vaccine) সরবরাহ করা সম্ভব নয়। কোভাক্সিন (Covaxin) হ’ল দেশীয় সংস্থায় তৈরি করোনা টিকা। সম্প্রতি সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, কেন্দ্রকে স্বল্পমূল্যে ভ্যাকসিন সরবরাহ করার কারণে বেসরকারী ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনের দাম অত্যাধিক বেড়ে যাচ্ছে।

ভারত বায়োটেক (Bharat Biotech) এখন পর্যন্ত রাজ্য সরকারগুলিকে ডোজ প্রতি ৪০০ টাকা এবং বেসরকারী হাসপাতালে ডোজ প্রতি ১২০০ টাকায় ভ্যাকসিন সরবরাহ করছে। আগামী ২১ জুন থেকে গোটা দেশে বিনামূল্যে টিকাকরণ চালাবে কেন্দ্র। সুতারং এখন ভারত সরকার মোট উত্পাদনের ৭৫ শতাংশ কিনবে, যা কোম্পানিকে ডোজ প্রতি ১৫০ টাকায় সরবরাহ করতে হবে। আর সেখানেই আশঙ্কার কথা শোনালো ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সংস্থা।

সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ব্যয়ের সামঞ্জস্য বজায় রাখতে বেসরকারী বাজারে বেশি দাম রাখা দরকার। ভারত বায়োটেক এখনও পর্যন্ত ভ্যাকসিনের কাঁচামাল আমদানি, ক্লিনিকাল ট্রায়াল এবং কোভাক্সিনের জন্য উত্পাদন ইউনিট স্থাপনের জন্য ৫০০ কোটি টাকারও বেশি বিনিয়োগ করেছে।

সম্প্রতি ভ্যাকসিনের দাম বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্র। সেখানে বেসরকারি ক্ষেত্রে কোভ্যাক্সিনের (Covaxin) দাম রাখা হয়েছে ১,৪১০ টাকা সঙ্গে থাকছে ১৫০ টাকা জিএসটি। সহজ কথায় দেশের মধ্যেও সবথেকে দামি কোভ্যাক্সিন। কার্যকারিতার দিক থেকে কোভিশিল্ডের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে আছে কোভ্যাক্সিন। দাম প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভ্যাক্সিন যে প্রক্রিয়া তৈরি হচ্ছে, তাতে উৎপাদনমূল্য অনেকটাই বাড়িয়ে দিচ্ছে। এমনকী এই টিকা তৈরির জন্য অত্যন্ত দামী হাজার হাজার লিটারের রক্তরস বা সেরাম আমদানি করতে হচ্ছে ভারত বায়োটেককে।

উল্লেখ্য, স্বাস্থ্য মন্ত্রক গত মাসে জানিয়েছিল যে ভারত বায়োটেক দ্বারা উত্পাদিত ভ্যাকসিনের উত্পাদন ক্ষমতা জুলাই-আগস্টে বেড়ে দাঁড়াবে ৬ থেকে ৭ কোটি। এপ্রিলে মাসেই উৎপাদিত হয়েছিল ১ কোটি। একই সময়ে, সেপ্টেম্বরের মধ্যে এটি প্রতি মাসে প্রায় ১০ কোটি ডোজ পৌঁছানোর আশা করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *