Babul Supriyo : ১২ দিনের নীরবতা ভেঙে সোশ্যাল মিডিয়ায় বাবুল সুপ্রিয়! কাদের জন্য দিলেন বার্তা?

তাঁর অন্তর্ধান ঘিরে জল্পনার মধ্যেই অবশেষে মুখ খুললেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। সামাজিক মাধ্যমে আবারও প্রকাশ্যে এলেন আসানসোলের সাংসদ। আসানসোল থেকে দু’বার বিজেপির টিকিটে জয়ী হয়ে দু’বারই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হন বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo)। তবে একবারও তিনি পূর্ণ মন্ত্রিত্বর স্বাদ পাননি। আর এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাঁর মন্ত্রীসভার সম্প্রসারণ এবং রদবলের সময় বাংলার দুই কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরীকে বাদ দিয়েছেন নতুন মন্ত্রিসভায়।

তাঁর কেন্দ্রীয় মন্ত্রিত্ব যাওয়ার পর থেকেই বাবুল সুপ্রিয়কে নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল জল্পনা ছড়ায়। যার অন্যতম কারণ ছিল বাবুলের একের পর এক ফেসবুক পোস্ট। যাতে কার্যত ধরা পরে যায় মন্ত্রিত্ব হারিয়ে কার্যত কাতর বিজেপি সাংসদ। এরইমধ্যে জল্পনা আরও বাড়িয়ে বাবুল সুপ্রিয় নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে বিজেপির প্রাক্তন নেতা মুকুল রায় আর তৃণমূলকে ফলো করা শুরু করেন। বাবুল সুপ্রিয়র এই কাজে রাজ্য রাজনীতি মহলে তুমুল গুঞ্জন ছড়িয়েছিল।

এরপরেই কিছুদিন সামাজিক মাধ্যমে আর দেখা যাচ্ছিল না আসানসোলের বিজেপি সাংসদকে। মঙ্গলবার ১২ দিনের বিরতির পরে ফের একবার ট্যুইটার পোস্ট করলেন বাবুল সুপ্রিয়। এবারে তাঁর বার্তা সরাসরি আসানসোলবাসীদের জন্য। ট্যুইটার পোস্টে বাবুল জানিয়েছেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে অনিবার্য কারণবশত, MPLAD ফান্ডের কাজ এক বছর বন্ধ থাকার পর আবার শুরু হতে চলেছে।’ একইসঙ্গে তিনি জানান, আসানসোলের বিভিন্ন অঞ্চলে তিন কোটি অষ্টআশি লাখ আশি হাজার টাকার কাজ তাঁর সাংসদ তহবিল থেকে মঞ্জুর করেছেন বাবুল সুপ্রিয়।

এর আগে তাঁর শেষ রাজনৈতিক পোস্টে বাবুল সুপ্রিয় লিখেছিলেন, ‘আমাকে নিয়ে অনেক জল্পনা ছড়িয়েছে। কেউ আমাকে নিয়ে অভদ্র ভাষা ব্যবহার করছেন, আবার কেউ আমাকে নিয়ে ট্রোল করছেন। আমি অনুরোধ করব, জল্পনা আর গুঞ্জন দিয়ে আমাকে বিচার করবেন না। আমি যা করেছি আমাকে সেটা দিয়েই বিচার করবেন।’ তবে কী অভিমান ভুলে আবারও কাজে ফিরছেন বাবুল।

সূত্রের খবর, মন্ত্রিসভা থেকে অব্যহতি দেওয়া হলেও আগামী দিনে বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরীকে বঙ্গ বিজেপিতে বড়সড় দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। যেহেতু এখনও বঙ্গ বিজেপিতে কোনও রদবদল হয়নি, সেই কারণে তাঁদের এখনও কোনও দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। তবে কী সেই আশ্বাস পেয়েই আবারও পুরোনো ছন্দে ফিরছেন বিজেপি সাংসদ? উত্তর দেবে সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *