হার্টের যত্ন থেকে ওজন নিয়ন্ত্রণ- জেনে নিন তেঁতুলের একাধিক উপকারিতা

তেঁতুলের নাম শুনলেই জিভে জল চলে আসে।আর তেঁতুলের পছন্দ করে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া খুবই দুষ্কর।তাই তেঁতুলপ্রেমি মানুষের সংখ্যা হাতে গোনা যাবে না।এইসব হল তেঁতুলে স্বাদের কথা এবার আসা যাক তেঁতুলের উপকারিতার কথায়।আপনারা কি জানেন যে তেঁতুল খাওয়ায় আমাদের শরীরে পক্ষে খুবই উপকারি।এতে আমাদের শরীরে অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি দিয়ে শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। তাই কতখানি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি তেঁতুল সেটা জেনে নিন। 

ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে:যাদের ডায়বেটিস আছে তাদের পক্ষে তেঁতুল খাওয়া ভালো।কারন তেঁতুল রক্তে চিনির মাত্রা কমিয়ে আনতে সাহায্য করে।এছাড়াও এই ফলটি হাইপারগ্ল্যাসেমিয়াকে নিউট্রিলায়েজ করতেও কাজ করে।

হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে:আমাদের শরীরে দুই ধরনের কোলেস্টেরল থাকে একটি ভালো কোলেস্টেরল আরেকটি খারাপ কোলেস্টেরল।তেঁতুল এই রক্তের ভালো কোলেস্টেরল (HDL) মাত্রা বৃদ্ধি করতে এবং খারাপ কোলেস্টেরল (LDL) এর মাত্রা হ্রাস করতে সাহায্য করে।যার ফলে আমাদের হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকে।

লিভারের সমস্যা কমায়:তেঁতুল লিভারের সমস্যা কমাতেও সাহায্য করে।কারন তেঁতুলের রস কার্যকর প্রোসায়ানাইডেনস (Procyanidins) লিভারের ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজকে প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।তাই  লিভারের জন্য তেঁতুল একটি উপকারি উপাদান।এছাড়াও তেঁতুল স্ট্রেস দূর করতেও সাহায্য করে কারন  তেঁতুলে থাকে কপার, ম্যাংগানিজ, সেলেনিয়াম ও আয়রন ইত্যাদি উপাদান। 

ওজন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে:তেঁতুল ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে।কারন তেঁতুলের রস থেকে হাইড্রক্সিসিট্রিক (Hydroxycitric) অ্যাসিড নিঃসৃত হয় যা ওজন কমাতে সাহায্য করে এবং তেঁতুল খাওয়ার ফলে এর থেকে সেরোটোনিন এনজাইমের নিঃসরণ বৃদ্ধি পায় যার ফলে ক্ষুধাভাব হ্রাস পায়।তাই ওজন কমাতে চাইলে তেঁতুল খান। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *