মুকুল রায় ভিত নাড়িয়ে দিয়েছেন, তড়িঘড়ি কেন্দ্রের সঙ্গে বৈঠকে ত্রিপুরা বিজেপি

বাংলায় গেরুয়া শিবিরে বড় ধাক্কা দিয়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন মুকুল রায়। আর এই ধাক্কায় শুধুমাত্র বাংলাতেই গেরুয়া শিবির টালমাটাল হয়ে যায়নি। এই ধাক্কায় রীতিমতো চিন্তার ভাঁজ উঠেছে ত্রিপুরার গেরুয়া শিবিরেও। ত্রিপুরা বিজেপিতেও ভাঙনের আশঙ্কা প্রবল থেকে প্রবলতর হছে। আর সেই আশঙ্কাতেই ত্রিপুরার ময়দানে নেমে পড়েছেন বিজেপির ন্যাশানাল সেক্রেটারি বি এল সন্তোষ। ত্রিপুরার বিজেপি নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন তিনি। ত্রিপুরা বিজেপি সূত্রে খবর, ত্রিপুরায় বিজেপির সবথেকে বড় মাথাব্যথা হল বিপ্লব দেব বনাম সুদীপ রায় বর্মনের সমস্যা। বিজেপিতে যোগ্যসম্মান পাননি বলে সুদীপ বরাবরই সরব। ইতিমধ্যে তিনি ‘বন্ধুর নাম সুদীপ’ নামে একটি সংগঠন তৈরি করে ফেলেছেন। ফলে মুকুল অনুগামী বলে পরিচিত সুদীপ রায় বর্মন এবার মুকুল রায়ের হাত ধরে তৃণমূলে ফিরে যেতে পারেন বলে সম্ভাবনা প্রবল হয়েছে।

যে কারণে, তড়িঘড়ি সুদীপ ও তাঁর ঘনিষ্ঠ নেতা, মন্ত্রী ও বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন বি এল সন্তোষ এবং বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বরা। তাঁরা অবিলম্বে চাইছেন, বিপ্লব-সুদীপ ঝামেলা মিটিয়ে সুদীপকে বিজেপিতে ধরে রাখতে। এদিকে ত্রিপুরা তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি আশিষ লাল সিং জানিয়েছেন, বাংলায় তৃণমূলের ব্যাপক জয়ের পর ত্রিপুরাতে প্রচুর মানুষ তৃণমূলে আসতে চাইছেন। গত পনেরো দিনে প্রায় ১০ হাজারের উপর মানুষ বিজেপি এবং সিপিএম ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বলেও দাবি করেছেন তিনি। তবে যারা একটা সময় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে চলে গিয়েছিলেন তারা এখন তৃণমূলে ফিরতে চাইলেই তাদের নেওয়া হবে কি না তা ঠিক করবেন একমাত্র তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

স্বাভাবিকভাবেই আশিষ লালের মন্তব্যের পর ত্রিপুরা বিজেপিতে ভয় আরও বেড়ে গিয়েছে। সবথেকে বেশি ভয় ধরেছে সুদীপ ও তাঁর অনুগামীদের নিয়ে। ২০১৭ সালে মুকুল রায়ের হাত ধরেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে এসেছিলেন সুদীপ ও তাঁর অনুগামীরা। ফলে এবারে ফের মুকুল রায়ের হাত ধরে তারা ফের তৃণমূলে ফিরে যেতে পারেন বলে আশঙ্কা করে আপাতত তাদের মান ভঞ্জনের পথে নেমেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সূত্রের খবর, বিজেপির কেন্দ্রীয় স্তরের নেতা বি এল সন্তোষকে উড়িয়ে নিয়ে এসে বৈঠকের মাধ্যমে গেরুয়া শক্তিকে অটুট রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। যদিও ত্রিপুরা বিজেপির সভাপতি মৈনাক সাহার দাবি, ত্রিপুরায় বিজেপি পরিবার ঠিকঠাক রয়েছে। তবে রাজনৈতিক মহলের মতে, মুকুল রায় তৃণমূলে ফিরে যাওয়ায় ত্রিপুরাতে বিজেপির ভিত নড়ে গিয়েছে। আর সেই কারণেই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের উড়িয়ে নিয়ে এসে বৈঠকে বসেছে ত্রিপুরা বিজেপি নেতৃত্ব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *