অভিনেত্রীদের নগ্ন করে অডিশন নিত শিল্পার স্বামী রাজ, মুখ খুললেন আরেক অভিনেত্রী

রাজ কুন্দ্রার (Raj Kundra) হাত ধরে বলিউডের আড়ালে এতদিন পর্নোগ্রাফির (Pornography) ব্যবসা চলেছে। কয়েক মাস আগে মুম্বাই পুলিশের সাইবার সেলে যে অভিযোগ ধরা পড়েছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত চালিয়ে রাজ কুন্দ্রাকেই ঘটনার প্রধান ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। যে কারণে গতকাল গভীর রাতেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে রাজ কুন্দ্রাকে। রাজের বিরুদ্ধে শার্লিন চোপড়া (Sherlyn Chopra)এবং পুনম পান্ডের (Punam Pandey) মতো অভিনেত্রীরাও পুলিশের কাছে নিজেদের অভিযোগ জানিয়েছেন।

শার্লিন এবং পুনম, উভয়েরই দাবি এই যে রাজ কুন্দ্রাই তাদের এই ইন্ডাস্ট্রিতে নিয়ে এসেছেন। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে তাদের দিয়ে কাজ করিয়েছেন। রাজ গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার সম্পর্কে এমন বহু অজানা তথ্যের খোলাসা হচ্ছে। তবে এবার রাজের বিরুদ্ধে মুখ খুলে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বলিউডেরই আরেক মডেল-অভিনেত্রী সাগরিকা সোনা সুমন (Sagarika Sona Suman)।

সাগরিকার অভিযোগ, ওয়েব সিরিজে কাজ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে অডিশন নেওয়ার সময় রাজ তাকে সর্বসমক্ষে পোশাক খুলে ফেলার কথা বলেন! লেখ, রাজের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই আনেন সাগরিকা। সেই সময় অভিযোগ জানাতে গিয়ে সাগরিকা স্পষ্ট দাবি করেন, বলিউডে যৌনপেশা নিয়ে বড়োসড়ো চক্রান্ত চলছে। আর এই চক্রান্তের পেছনে রাজ কুন্দ্রার বড় ভূমিকা রয়েছে বলে সেই সময় অভিযোগ করেছিলেন তিনি।

সাগরিকা জানিয়েছিলেন, গত বছরের আগস্ট মাসে ভিডিও কল মারফত রাজ এবং তার দুই সঙ্গী তার অডিশন নিয়েছিলেন। তাকে বলা হয়েছিল অডিশনে উত্তীর্ণ হতে পারলেই ওয়েব সিরিজের কাজ পেয়ে যাবেন তিনি। ভবিষ্যতে বড় ছবির কাজও পেয়ে যেতে পারেন। সাগরিকা বলেছিলেন, ‘‘৩/৪ বছর ধরে মডেলিং করছি আমি। কিন্তু খুব বেশি কাজ করিনি। এই লকডাউনের মধ্যেই একটি কাজ পেয়েছিলাম। সেই অভিজ্ঞতা জানাতে চাই সকলকে”।

এরপর সাগরিকা জানান, “অগস্ট মাসে আমি উমেশ কমাতজির (রাজের এক সহকারী) কাছ থেকে ফোন পাই। ওয়েব সিরিজের জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয় আমায়। বলা হয়, রাজ কুন্দ্রা এই সিরিজের প্রযোজনা করছেন।’’ এই ওয়েব সিরিজে কাজ করতে রাজি হলে ভবিষ্যতে আরও ভালো ভালো ছবি এবং ওয়েব সিরিজে কাজের সুযোগ দেওয়ার লোভ দেখানো হয়েছিল সাগরিকাকে। সেসব শুনে সাগরিকা অডিশনের জন্য রাজি হয়ে যান।

তবে ভিডিও কলে অডিশন চলাকালীন আচমকাই তাকে পোশাক খুলে ফেলতে বলা হয়। তবে সাগরিকা সেই প্রস্তাবে রাজি হননি। শোনা মাত্রই তিনি তা প্রত্যাখ্যান করে দেন। সাগরিকার কথায়, সেই সময় ভিডিওর অপর প্রান্তে তিনজন বসেছিলেন। এদের মধ্যে একজন ছিলেন খোদ রাজ কুন্দ্রা, দ্বিতীয়জন রাজের সহকারি উমেশ কমাত এবং তৃতীয় ব্যক্তির মুখ ঢাকা ছিল। সাগরিকা যে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন, তারপরেই মুম্বাই পুলিশের সাইবার সেলের কাছে এ সম্পর্কে রাজের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়ে। তার তদন্ত চালাতে গিয়ে রাজ কুন্দ্রাকে হাতেনাতে ধরে ফেলে মুম্বাই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *